বন-কুন্তল এলায়ে বন শবরী ঝুরে সকরুণ সুরে

বন-কুন্তল এলায়ে বন শবরী ঝুরে সকরুণ সুরে।
বিষাদিত ছায়া তার চৈতালী সন্ধ্যার চাঁদের মুকুরে।।
চপলতা বিসরি যেন বন-যৌবন
বিরহ-ক্ষীণ আজি উদাস উন্মন,
তোলে না ঝঙ্কার আর ঝরা পাতার মর্মর নূপুরে।।
যে কুহু কুহরিত মধুর পঞ্চমে বিভোর ভাবে,
ভগ্ন কণ্ঠে তার থেমে যায় সুর করুণ রেখাবে।
কোন বন-শিকারীর অকরুণ তীর
আলো হ’রে নিল ওই উজল আঁখির –
ফেলে যাওয়া বাঁশি তা’র অঞ্চলে লুকায়ে –
গিরি–দরি–প্রান্তরে খোঁজে সে নিঠুরে।।