নূরজাহান

নূরজাহান! নূরজাহান!  
সিন্ধু নদীতে ভেসে    (এলে) মেঘলা-মতির দেশে 
                  ইরানি গুলিস্থান॥  
নার্গিস লালা গোলাপ আঙুর-লতা  
শিঁরি-ফরহাদ-শিরাজের উপকথা  
এসেছিলে তুমি তনুর পেয়ালা ভরি  
                  বুলবুলি, দিলরুবা, রবাবের গান॥  
তব প্রেমে উন্মাদ ভুলিল সেলিম সে যে রাজধিরাজ–  
চন্দন সম মাখিল অঙ্গে কলঙ্ক লোক-লাজ।  
যে কলঙ্ক লয়ে হাসে চাঁদ নীলাকাশে
(যাহা) লেখা থাকে শুধু প্রেমিকের ইতিহাসে  
দেবে চিরদিন নন্দন-লোকচারী
তব সেই কলঙ্ক সে প্রেমের সম্মান॥

Categories

নিখিল ঘুমে অচেতন সহসা শুনিনু আজান

নিখিল ঘুমে অচেতন সহসা শুনিনু আজান
শুনি’ সে তকবিরের ধ্বনি আকুল হল মন-প্রাণ
বাহিরে হেরিনু আসি বেহেশতী রৌশনীতে রে
ছেয়েছে জমিন ও আসমান
আনন্দে গাহিয়া ফেরে ফেরেশ্‌তা হুর গেলেমান –
এলো কে, কে এলো ভুলোকে! দুনিয়া দুলিয়া উঠিল পুলকে।।
তাপীর বন্ধু, পাপীর ত্রাতা, ভয়-ভীত পীড়িতের শরণ-দাতা
মুকের ভাষা নিরাশার আশা, ব্যথার শান্তি, সান্ত্বনা শোকে
এলো কে ভোরের আলোকে।।
দরুদ পড় সবে : সাল্লে আলা, মোহাম্মদ মোস্তফা সাল্লে আলা।
কেহ বলে, এলো মোর কম্‌লিওয়ালা – খোদার হাবীব কেহ কয় নিরালা
মোহাম্মদ মোস্তফা সাল্লে আলা।
কেহ বলে, আহমদ নাম মধু ঢালা – মোহাম্মদ মোস্তফা সাল্লে আলা।
মজনুঁরও চেয়ে হল দীওয়ানা সবে, নাচে গায় নামের নেশায় ঝোঁকে।।

নূরের দরিয়ায় সিনান করিয়া কে এলো মক্কায় আমিনার কোলে

নূরের দরিয়ায় সিনান করিয়া কে এলো মক্কায় আমিনার কোলে
ফাগুন-পূণিমা-নিশীথে যেমন আস্‌মানের কোলে রাঙা চাঁদ দোলে।।
কে এলো কে এলো গাহে কোয়েলিয়া,
পাপিয়া বুল্‌বুল্‌ উঠিল মাতিয়া,
গ্রহতারা ঝুঁকে করিছে কুর্নিশ হুরপরী হেসে পড়িছে ঢ’লে।।
জান্নাতের আজ খোলা দরওয়াজা পেয়ে
ফেরেশ্‌তা আম্বিয়া এসেছে ধেঁয়ে
তাহ্‌রীমা বেঁধে ঘোরে দরুদ গেয়ে
দুনিয়া টলমল্‌, খোদার আরশ টলে।।
এলো রে চির-চাওয়া এলো আখেরি নবী
সৈয়দে মক্কী মদনী আল্‌-আরবি,
নাজেল হয়ে সে যে ইয়াকুত-রাঙা ঠোঁটে
শাহ্‌দতের বাণী আধো আধো বোলে।।

নাম মোহাম্মদ বোল রে মন

নাম মোহাম্মদ বোল রে মন, নাম মোহাম্মদ বোল
যে নাম নিয়ে চাঁদ সিতারা আসমানে খায় দোল।।

পাতায় ফুলে যে নাম আঁকা,
ত্রিভুবনে যে নাম মাখা,
যে নাম নিয়ে হাসীন ঊষার রাঙ্গে রে কপোল।।

যে নাম গেয়ে ধায়রে নদী,
যে নাম সদা গায় জলধি,
যে নাম বহে নিরবধি পবন হিল্লোল।।

যে নাম বাজে মরু সাহারায়,
যে নাম বাজে শ্রাবন- ধারায়,
যে নাম চাহে কাবার মসজিদ, মা আমিনার কোল।।

নয়ন ভরা জল গো তোমার আঁচল ভরা ফুল

নয়ন ভরা জল গো তোমার আঁচল ভরা ফুল
ফুল নেব না অশ্রু নেব ভেবে হই আকুল।।
ফুল যদি নিই তোমার হাতে
জল রবে গো নয়ন পাতে
অশ্রু নিলে ফুটবে না আর প্রেমের মুকুল।।
মালা যখন গাঁথ তখন পাওয়ার সাধ যে জাগে
মোর বিরহে কাঁদ যখন আরও ভালো লাগে।
পেয়ে তোমায় যদি হারাই
দূরে দূরে থাকি গো তাই
ফুল ফোটায়ে যায় গো চলে চঞ্চল বুলবুল।।

Categories

নিশি-ভোরে অশান্ত ধারায় ঝরঝর বারি ঝরে

নিশি-ভোরে অশান্ত ধারায় ঝরঝর বারি ঝরে।
আকাশ-পারের বিরহীর বীণা যেন সুর ঝুরে আকুল স্বরে।।
কাহার মদির নিঃশ্বাস আসে
বকুলের বনে ঝরা ফুল বাসে
কর হানি দ্বারে যেন বারে বারে
খোল দুয়ার বলি ডাকে ঘুমঘোরে।।
ডাকে কেয়া বনে ডাহুক কেকা
বিরহের ভার বহি কত আর একা
ম্লান হয়ে এলো চোখে কাজলের লেখা অশ্রু-লোরে।।

Categories

না-ই পরিলে নোটন-খোঁপায় ঝুমকো জবার ফুল

না-ই পরিলে নোটন-খোঁপায় ঝুমকো জবার ফুল (রানী)
এমনি এসো (ওগো) লুটিয়ে পিঠে আকুল এলোচুল।।
সজ্জা-বিহীন লজ্জা নিয়ে
এমনি তুমি এসো প্রিয়ে
গোলাপ ফুলের রঙ মাখাতে হয় যদি হোক ভুল।।
গৌর দেহে নাই জড়ালে গৌরী চাঁপার শাড়ি
ওগা ভূষণ পরে না-ই বা দিলে রূপের সাথে আড়ি।
যেমন আছ তেমনি এসো
নয়ন তুলে একটু হেসো
সেই খুশিতে উঠবে দুলে আমার হৃদয় কুল।।

Categories

নহে নহে প্রিয় এ নয় আখিঁজল

নহে নহে প্রিয় এ নয় আখিঁজল।
মলিন হয়েছে ঘুমে চোখের কাজল।।

হেরিয়া নিশি প্রভাতে শিশির কোমল পাতে।
ভাগ্য বুঝি বেদনাতে কেঁদেছে কমল।।

মরুতে চরণ খেলে কেন বল মৃগ এলে।
সলিল চাহিতে প্রেমে মরীচিকা ছায়।।

এ শুধু শীতের মেঘে ক ফুটো কুয়াশা লেগে।
ছলনা উঠেছে জেগে এ নহে বাধন।।

Categories

নিশি ভোর হল জাগিয়া, পরান–পিয়া

নিশি ভোর হল জাগিয়া, পরান–পিয়া
ডাকে ‘পিউ কাঁহা’ পাপিয়া, পরান–পিয়া।।
ভুলি’ বুলবুলি –সোহাগে
কত গুল্‌বদনী জাগে
রাতি গুল্‌সনে যাপিয়া, পরান–পিয়া।।
জেগে রয়, জাগার সাথী
দূরে চাঁদ, শিয়রে বাতি
কাঁদি ফুল–শয়ন পাতিয়া, পরান–পিয়া।।
গেয়ে গান চেয়ে কাহারে
জেগে র’স কবি এপারে
দিলি দান কারে এ হিয়া, পরান–পিয়া।।

Categories

নমঃ নমঃ নামো বাঙালাদেশ মম

নমঃ নমঃ নামো বাঙালাদেশ মম
চির মনোরম চির মধুর
বৃকে নিরবধি বহে শত নদী
চরণে জলধির বাজে নূপুর।।
গ্রীষ্মে নাচে বামা কালবোশেখি ঝড়ে
সহসা বরষাতে কাঁদিয়া ভেঙ্গে পড়ে
শরতে হেসে চলে শেফালিকা-তলে
গাহিয়া আগমনী গীতি বিধুর।।
হরিত অঞ্চল হেমন্তে দুলায়ে
ফেরে সে মাঠে মাঠে শিশির ভেজা পায়ে
শীতের অলস বেলা পাতা ঝরারি খেলা
ফাগুনে পরে সাজ ফুল-বধূর।।
এই দেশের মাটি জল ও ফুলে ফলে
যে রস যে সুধা নাহি ভূমণ্ডলে
এই মায়েরি বুকে হেসে খেলে সুখে
ঘুমাবো এই বুকে স্বপ্নাতুর।।

Categories