বেয়ান, বলি ও বেয়ান ঠাকরুন

পুরুষ : (বেয়ান, বলি ও বেয়ান ঠাকরুন)
বেয়ান তোমার আলু চেরা চোখে আমি মরে আছি
স্ত্রী : বেয়াই আমি তাইতো তোমার গোদা পায়ে শরণ যাচি।
ও তোমার গোদা পায়ে শরণ যাচি।
পুরুষ : (বলি ও বয়ান তোমার)
দাঁতে ছাতা গালে ছুলি গলায় পেটে কোলাকুলি
আমি দেখেই ছুটি কাছা খুলি
(আমি) দেখেই ছুটি ও আমার কাছা খুলে গো
দেখেই ছুটি হরিবোল বোলে রে
দেখেই ছুটি ও হরিবোল বোলে রে
আমি কাছা খুলে বাহু তুলে দেখেই ছুটি।
স্ত্রী : (বলি ও বেয়াই, ও কাছা তো নয়) এ যে লেজুড়েরি কাছাকাছি।
পুরুষ : (বলি ও বেয়ান ঠাকরুন তোমার)
ফোকলা দাঁতে প্রেমের বুলি শুনেই কাঁধে নিলেম ঝুলি।
স্ত্রী : (বুঝি গৌর নামের ঝুলি, বলি ও বেয়াই উঁ)
বেয়াই নিয়ে এবার যাবে রাঁচি
যাবে রাঁচি গৌর হে ওহে গৌর (যাবে রাঁচি)
কাছা খুলে বাহু তুলে যাবে রাঁচি (তুমি)।
পুরুষ : (বলি ও বেয়ান)
ভাগলপুরি বিবির মতন নাদুস নুদুস কি সে গঠন
স্ত্রী : (বলি ও হামদো বুড়ো) তুমি মাম্‌দো ভূত যে চামড়া খেকো
ও আমায় করতে এলে আমড়া গাছি।

Categories

বেল ফুল এনে দাও চাই না বকুল

বেল ফুল এনে দাও চাই না বকুল
চাই না হেনা, আনো আমের মুকুল।।
গোলাপ বড় গরবী এনে দাও করবী
চাইতে যূথী আন টগর – কি ভুল।।
কি হবে কেয়া, দেয়া নাই গগনে;
আনো সন্ধ্যামালতী গোধূলি-লগনে।
গিরি-মল্লিকা কই’ চামেলি পেয়েছে সই
চাঁপা এনে দাও, নয় বাঁধব না চুল।।

Categories

বেদিয়া বেদিনী ছুটে আয়,আয়,আয়

বেদিয়া বেদিনী ছুটে আয়,আয়,আয়
ধাতিনা ধাতিনা তিনা ঢোলক মাদল বাজে
বাঁশিতে পরান মাতায়।।
দলে দলে নেচে নেচে আয় চলে
আকাশের শামিয়ানা তলে
বর্শা তীর ধনুক ফেলে আয় আয় রে
হাড়ের নূপুর প’রে পায়।।
বাঘ-ছাল প’রে আয় হৃদয়-বনের শিকারি
ঘাগরা প’রে প’রে পলার মালা আয় বেদের নারী
মহুয়ার মধু পিয়ে ধুতুরা ফুলের পিয়ালায়।।

Categories

বেদনার সিন্ধু-মন্থন শেষ, হে ইন্দ্রানী

বেদনার সিন্ধু-মন্থন শেষ, হে ইন্দ্রানী,
জাগো, জাগো করে সুধা-পাত্রখানি।।
রোদন-সায়রে ধুয়ে পুষ্পতনু
এসো অশ্রুর বরষার ইন্দ্র-ধনু,
হের কুলে অনুরাগে জীবন-দেবতা জাগে
ধরিবে বলিয়া তব পদ্মপাণি।।
তব দুখ-রাত্রির তপস্যা শেষ- এলো শুভ দিন,
অতল-তমসা-লক্ষ্মী গো তুমি অমরার
এসো এসো পার হ’য়ে ব্যথার পাথার।
অশ্রুত অশ্রুর নীরবতা কর দূর
কূলে কূলে হাসির তরঙ্গ হানি।।

Categories

বেণুকার বনে কাঁদে বাতাস বিধুর

বেণুকার বনে কাঁদে বাতাস বিধুর –
সে আমারি গান, প্রিয় সে আমারি সুর॥
হলুদ চাঁপার ডালে সহসা নিশীথ কালে
ডেকে ওঠে সাথি হারা পাখি ব্যথাতুর॥
নদীর ভাটির স্রোতে শ্রান্ত সাঁঝে
অশ্রু জড়িত মোর সুর যে বাজে।
সে সুরের আভাসে আঁখিপুরে জল আসে,
মনে পড়ে চলে-যাওয়া প্রিয়রে সুদূর॥

Categories

বৃথা তুই কাহার পরে করিস অভিমান

বৃথা তুই কাহার পরে করিস অভিমান
পাষাণ-প্রতিমা সে যে হৃদয় পাষাণ।।
রূপসীর নয়নে জল নয়ন-শোভার তরে
ও শুধু মেঘের লীলা নভে যে বাদল ঝরে।
চাতকেরই তরে তাহার কাঁদে না পরান।।
প্রণয়ের স্বপন-মায়া,ধরিতে মিলায় কায়া
গো-ধূলির রঙের খেলা ক্ষণে অবসান।।

Categories

বুল্‌বুলি নীরব নার্গিস–বনে

বুল্‌বুলি নীরব নার্গিস–বনে।
ঝরা বন–গোলাপের বিলাপ শোনে।।
শিরাজের নওরোজে ফাল্গুন মাসে
যেন তার প্রিয়ার সমাধির পাশে,
তরুণ ইরান–কবি কাঁদে নিরজনে।।
উদাসীন আকাশ থির হ’য়ে আছে,
জল–ভরা মেঘ ল’য়ে বুকের কাছে।
সাকির শরাবের পিয়ালার ‘পরে
সকরুণ অশ্রুর বেল ফুল ঝরে,
চেয়ে আছে ভাঙা চাঁদ মলিন–আননে।।

Categories

বিরহের গুলবাগে মোর ভুল ক’রে আজ ফুটলো কি বকুল

বিরহের গুলবাগে মোর ভুল ক’রে আজ ফুটলো কি বকুল।
অবেলায় কুঞ্জবীথি মুঞ্জরিতে এলে কি বুলবুল।
এলে কি পথ ভুলে মোর আঁধার রাতে ঘুম-ভাঙানো চাঁদ,
অপরাধ ভুলেছ কি, ভেঙেছে কি অভিমানের বাঁধ।
মরণ আজ মধুর হলো পেয়ে তব চরণ রাতুল।।
ওগো প্রদীপ নিভে আসে ইহারি ক্ষীণ আলোকে,
দেখে নিই শেষ দেখা যত সাধ আছে চোখে।
হে চির-সুন্দর মোর, বিদায়-সন্ধ্যা মম
রাঙালে এ কি রঙে উদয় ঊষার সম
ঝ’রে পড়ুক তব পায়ে আমার এই জীবন-মুকুল।।

Categories

বাঁশি বাজাবে কবে আবার বাঁশরিওয়ালা

বাঁশি বাজাবে কবে আবার বাঁশরিওয়ালা
তব পথ চাহি ভারত-যশোদা কাঁদিছে নিরালা।।
কৃষ্ণা-তিথির তিমির হারী; শ্রীকৃষ্ণ এসো, এসো, মুরারি
ঘরে ঘরে আজ পুতনা ভীতি হানিছে কালা।।
কংস-কারার ভাঙো ভাঙো দ্বার
দেবকীর বুকের পাষাণ ভঅর নামাও নামাও
যুগ যুগ সম্ভব পুর্ণাবতার!
নিরানন্দ এ দেশ হাসুক আবার, আনন্দে হে নন্দলালা।।

Categories

বাঁকা শ্যামল এলো বন-ভবনে

বাঁকা শ্যামল এলো বন-ভবনে
তার বাঁশির সুর শুনি পবনে॥
রাঙা সে চরণের নূপুর-রোলে রে
আকুল এ হৃদয় পুলকে দোলে রে
সে নূপুর শুনি’ নাচে ময়ূর কদম তমাল-বনে॥
বুঝি সেই শ্যামের পরশ লাগিল
আমার চরণে তাই নাচন জাগিল –
ঘিরি শ্যামে দখিন-বামে নেচে বেড়াই আপন মনে॥
এলো মাধবী চাঁদ গগন আঙিনায়
জোয়ার এসেছে তাই হৃদয় যমুনায়
খুলিয়া গলার মালা পরাব শ্যামেরি বরণে॥

Categories